খসড়া বৃত্তি প্রদান নীতিমালা

এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন

এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিন

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা।

 

এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন  কর্তৃক ফেলোশিপ / বৃত্তি প্রদান সম্পর্কিত নীতিমালা-২০২১

বিজ্ঞানমনস্ক  জাতি গঠন, কৃষি সংক্রান্ত গবেষণা উন্নয়ন ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন গঠন করা হয়।

 

১। এই নীতিমালা  এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন কর্তৃক ফেলোশিপ / বৃত্তি প্রদান সম্পর্কিত নীতিমালা- ২০২১ নামে অবিহিত হবে।

 

২। উদ্দেশ্যাবলীঃ

ক) কৃষি ও প্রযুক্তির ক্ষেত্রে যোগ্য, দক্ষ ও প্রশিক্ষিত জনবল তৈরির মাধ্যমে নেতৃত্বের উৎকর্ষ সাধন ও বিকাশ ঘটানো।

খ) কৃষি ও প্রযুক্তি বিষয়ক গবেষণালদ্ধ জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা দেশের সার্বিক উন্নয়ন  কর্মকান্ডে ব্যবহারে উদ্বুদ্ধকরণ এবং

গ) সর্বোপরি কৃষি ও কৃষকের উন্নয়ন সাধন।

 

৩। ফেলোশিপ কার্যক্রমের ব্যবস্থাপনাঃ

ক) এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন একটি আর্থিক পরিকল্পনা প্রনয়ের মাধ্যমে ফেলোশিপ / বৃত্তি কার্যক্রম বাস্তবায়ন করবে এবং একটি বাছাই কমিটি ও একটি এওয়ার্ড কমিটির মাধ্যমে ফেলো বাছাই করবে।

খ) ফেলোশিপ প্রদান কার্যক্রমের প্রশাসনিক ও আর্থিক নিয়ন্ত্রন এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন এর ওপর ন্যান্ত থাকবে।

গ) এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন কর্তৃক গঠিত মনিটরিং টিম  অধ্যায়নরত ফেলোগনের অধ্যায়ন কার্যক্রম মনিটরিং করবে।

ঘ) ফেলোশিপ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী  সংশ্লিষ্ট ডিসিপ্লিন প্রধানের মাধ্যমে প্রতি ৬ (ছয়) মাস/ প্রতি টার্ম অন্তর অধ্যায়নের অগ্রগতি সম্পর্কে প্রতিবেদন এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন  প্রেরণ এবং প্রয়েজনবোধে উপস্থাপন করবেন।এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন  অগ্রগতি প্রতিবেদন মূল্যায়ন পূর্বক ফেলোশিপ নবায়ন অথবা অবসনের  সিদ্ধান্ত  গ্রহন করবে। আশানুরুপ অগ্রগতি না হলে অথবা নিয়ম ভঙ্গ বা অসদাচরনের প্রমান পাওয়া গেলে এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন  যে কোন সময় ফেলোশিপ / বৃত্তি বাতিল করতে পারবে।

 

৪। ফেলোশিপের শ্রেণি, ভাতার হার ও মেয়াদঃ

ক) ফেলোশিপের শ্রেণিঃ  ফেলোশিপের আওতায় এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনে অধ্যায়নরত স্নাতক ও এম এস শিক্ষার্থীদের বিবেচনা করা হবে। ফেলো নির্বাচনের ক্ষেত্রে মেধাবি ও দরিদ্র শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

খ) ফেলোর মেয়াদঃ ফেলোশিপের বৃত্তির সর্বোচ্চ মেয়াদ হবে এক বছর।

গ) ফেলোশিপের ভাতার হারঃ

স্নাতক-১০০০/-(এক হাজার) টাকা (মাসিক)

এম এস-১৫০০/-(এক হাজার পাঁচশত) টাকা (মাসিক)

৫। ফেলোশিপ আবেদনকারীর যোগ্যতাঃ

ক) আবেদনকারীকে অবশ্যই বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে।

খ) আবেদনকারীকে অবশ্যই এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিনে অধ্যায়নরত থাকতে হবে।

গ) শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ ফেলোশিপের জন্য স্বীকৃত শিক্ষাবোর্ড / বিশ্ববিদ্যালয় হতে প্রাপ্ত সার্টিফিকেট /ডিগ্রীর মধ্যে ন্যুনতম ২টি প্রথম বিভাগ/শ্রেণি/ সমমান থাকতে হবে অথবা সিজিপিএ  ৪.৫( স্কেল ৫.০০ এর ক্ষেত্রে) এবং  সিজিপিএ ৩.৫০( স্কেল ৪.০০ এর ক্ষেত্রে)  থাকতে হবে।

ঘ) অন্য কোন সরকারি, স্বায়ত্বশাসিত, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান হতে  ফেলোগণ কোন প্রকার ফেলোশিপ / অনুদান গ্রহন করেন না এরুপ সত্যায়িত কপি জমা দিতে হবে।

 

৬। ফেলোশিপের জন্য আবেদন আহবান ও জমা প্রদানের পদ্ধতিঃ

ক) আবেদন আহবানঃ প্রতি অর্থ বছরে একবার আবেদন আহবান করা হবে। এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিন ও এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন ওয়েবসাইটে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে আবেদন আহবান করবে।

খ) আবেদন ফরম সংগ্রহ ও জমাদানঃ এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন ওয়েব সাইট এবং  এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিন হতে আবেদনপত্র সংগ্রহ করা হবে। এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিন এবং এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন কর্তৃক নির্ধারিত ফরমে অনলাইনে / সরাসরি  ট্রাষ্ট বরাবর ফেলোশিপের জন্য আবেদন করতে হবে। বাছাই কমিটির মাধ্যমে সরাসরি / অনলাইনে দাখিলকৃত আবেদন সমূহ হতে ফেলোশিপ প্রদানের জন্য প্রার্থী বাছাই করা হবে।

 

৭। আবেদন পত্রের সংগে আবশ্যিক ভাবে নিন্মোক্ত কাগজ পত্র সংযুক্ত থাকতে হবেঃ

ক) সকল শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ ও মার্কসীটের ছায়ালিপি  (বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক কর্তৃক সত্যায়িত) জমা দিতে হবে।

খ) আবেদনকারী একজন  সার্বক্ষনিক শিক্ষার্থী  এই মর্মে সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় প্রধানের প্রত্যয়ন পত্র দাখিল করতে হবে।

গ) সকল প্রার্থীকে অন্য কোন সরকারি , স্বায়ত্ব শাসিত, বেসরকারী প্রতিষ্ঠান হতে উক্ত শিক্ষা গবেষনার জন্য  কোন প্রকার ফেলোশিপ/ অনুদান গ্রহন করেন না মর্মে ১০০/-(এক শত) টাকার নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে ঘোষনা দিতে হবে।

ঘ) প্রার্থীকে জাতীয় পরিচয় পত্র / জন্মসনদ (যদি থাকে) এর সত্যায়িত কপি আবেদনের সঙ্গে দাখিল করতে হবে।

 

৮। ফেলো নির্বাচন সংক্রান্ত কমিটি সমূহঃ

ক) বাছাই কমিটিঃ আবেদনপত্র প্রাপ্তির পর যোগ্য প্রার্থীদের বাছাই / সুপারিশ করার লক্ষ্যে নি¤œরূপ বাছাই কমিটি থাকবে।

১        সভাপতি-        এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন-      আহবায়ক

২        সাধারন সম্পাদক-        এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন-      সদস্য

৩        সমাজ কল্যান বিষয়ক সম্পাদক- এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন-      সদস্য

৪        ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক-   এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন-      সদস্য

 

বাছাই কমিটির কার্যপরিধিঃ

ক) বাছাই কমিটি সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রার্থীদের দাখিলকৃত আবেদন যাচাই / বাছাই, বাজেট পরীক্ষাকরণ, তুলনামূলক বিবরণ প্রনয়ন, আবেদনের দ্বৈততা পরীক্ষাকরণ, সাক্ষাতকার / উপস্থাপনা গ্রহন, প্রয়োজনে প্রস্তাব মূল্যায়ন পূর্বক  ফেলোশিপ / অনুদান প্রদানের জন্য বাছাইকৃত প্রার্থীদের তালিকা প্রস্তুত করে এওয়ার্ড কমিটির  নিকট অনুমোদনের জন্য পেশ করবে। কমিটি আবশ্যিকভাবে মেধা সম্পন্ন প্রার্থীদের অগ্রাধিকার প্রদান করবে।

খ) এওয়াড কমিটিঃ  বাছাই কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে ফেলোশিপ / অনুদান প্রদানের জন্য চুড়ান্ত করনের জন্য নিম্নবর্নিত কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে এওয়ার্ড কমিটি থাকবে।

১।       ডিসিপ্লিন প্রধান-  এগ্রোটেনোলজি ডিসিপ্লিন –         আহবায়ক

২।       সভাপতি-          এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন-        সদস্য

৩।      সাধারন সম্পাদক –       এগ্রোটেকনোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশন-        সদস্য

 

এওয়ার্ড কমিটির কার্যপরিধিঃ

ক) এই কমিটি বাছাই কমিটি কর্তৃক সুপারিশকৃত প্রার্থীর তালিকা  হতে ফেলোশিপ এবং অনুদান প্রাপ্তির তালিকা চুড়ান্ত  করবে। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে  উপযুক্ত মনে করলে এই কমিটি কোন ফেলো বাছাই কমিটির পূনর্বিবেচনার জন্য পরামর্শ প্রদান করবে।

খ) ফেলোশিপ প্রদান নবায়নের ক্ষেত্রে  সিদ্ধান্ত  গ্রহন করবে।

৯। ফেলোশিপের ভাতা প্রদানঃ

ক)  নির্বাচিত ফেলোগন নির্বাচনের শর্ত মোতাবেক নির্ধারিত ফর্মে ও নিয়মে সংশ্লিষ্ট ডিসিপ্লিন প্রদানের প্রত্যায়নের ভিত্তিতে ত্রৈমাসিক (৩ মাস অন্তর) ভিত্তিতে বিল দাখিল করবেন।

থ) কোন অবস্থাতেই নির্দিষ্ট মেয়াদের অতিরিক্ত সময়ের জন্য কোন ভাতা বা ফি প্রদান করা হবে না।

গ) কোন টার্মে কোন কোর্সে রিটেক হলে ফেলোগনের ফেলোশিপ বাতিল অথবা অযোগ্য বলে গন্য হবে।

Agrotechnology Alumni Association © 2018 01718732843